বাংলাদেশ জাতীয় দলের পারফরম্যান্স বিবেচনায় বসেছে ফেডারেশনের কর্তারা। আজ বাফুফের ন্যাশনাল টিমস কমিটির এক সভায় বিগত সময়গুলোতে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের পারফরম্যান্স নিয়ে আলোচনায় বসেন কমিটির নীতি নির্ধারকরা। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বাফুফের সহ-সভাপতি ও বাফুফে ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু নাইম সোহাগ, বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান প্রশিক্ষক হাভিয়ার ক্যাবররা, বাফুফের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলি এবং কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

সভার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো বিগত জুনে এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাইপর্ব ও সেপ্টেম্বরের ফিফা উইন্ডোতে বাংলাদেশ দল ফলাফল বিশ্লেষণ এবং সে সম্পর্কে আলোচনা। গত জুনে ‘এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২২’ এর বাছাইপর্বে বাহরাইন, তুর্কমেনিস্তান এবং স্বাগতিক মালেশিয়ার বিপক্ষে লড়েছিলো। সেই টুর্ণামেন্টে জয় না পেলে ভালো লড়াই করেছিলো বাংলাদেশ। বিশেষ করে তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে অসাধারণ ফুটবল খেলেছিলো জামাল ভূঁইয়ারা। এশিয়ান কাপে বাংলাদেশ এই পারফরম্যান্স সম্পর্কে কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, ‘আমাদের দুই রকম পর্যালোচনা ছিল। যেহেতু দুই ধরনের খেলা হয়েছে, গত জুনে এএফসির খেলাগুলো ছিল কঠিন। সেখানে যাওয়ার আগে আমরা ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করেছি। এরপর বাহরাইনের কাছে ২-০ গোলে হেরেছি। তারা কিন্তু আমাদের চেয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০০ ধাপ এগিয়ে। তাদের কাছে ২-০ গোলে হারলেও সেখানে ছিল ভালো খেলার ইঙ্গিত।’

তিনি আরো বলেন, ‘তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে ২-১ গোলে হেরেছি, তারাও আমাদের চেয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে ৬০ ধাপের মতো এগিয়ে। এগুলো আমাদের চয়েজ করা ম্যাচ নয়, নির্ধারিত। ওখানে শুধু স্বাগতিক মালয়েশিয়ার বিপক্ষে আশানুরূপ খেলা হয়নি। আমাদের মতো আপনারাও দেখেছেন। যদি ধারাবাহিকভাবে ৩-৪টা ম্যাচ থাকে, তাহলে তৃতীয় বা চতুর্থ ম্যাচটি আমাদের আশানুরূপ হয় না। কী কারণে হয় না, কী করে এখানে উন্নতি করা যেতে পারে, এসব নিয়ে আজকে মূল আলোচনা হয়েছে।’

এশিয়ান কাপে ভালো লড়াইয়ে পরিচয় দিলেও সেপ্টেম্বরের ফিফা উইন্ডোতে বাংলাদেশ দল ছিলো একেবারে ছন্নছাড়া। কম্বোডিয়ার বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পেলেও নাস্তানাবুদ হয়েছে নেপালের কাছে। একই সময়ে যে নেপালের নারী দল ও অ-২০ বিপক্ষে জয়ে পেয়েছিলো বাংলাদেশ নারী দল ও বাংলাদেশ অ-২০ দল, সেই দলের সিনিয়র টিমের কাছে পাত্তাই পায় নি বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। এই নিয়ে কোচের কাছে প্রশ্ন করেছিলেন বাফুফে সহ-সভাপতি। প্রশ্নের উত্তরে কোচ যা বলেছিলেন তা নিয়ে বাফুফে সহ-সভাপতি বলেন, ‘কোচ তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ২০ মিনিটে ম্যাচের মোড় ঘুরে যায়। আমরাও দেখেছি প্রথমার্ধে দল তিন গোল খেয়েছে। দ্বিতীয় ম্যাচে আমাদের মনোযোগ ছিল না। টেকনিক্যাল অ্যাসেসমেন্ট, বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা, কোন ট্রেন্ডগুলো ধারাবাহিক, কোন দিকগুলো ইতিবাচক; সেগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

অন্যদিকে সেপ্টেম্বরের ফিফা উইন্ডো নিয়ে বাফুফের সহ-সভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ নিজের দৃষ্টি বলেন, ‘কম্বোডিয়া র‌্যাঙ্কিংয়ে আমাদের চেয়ে ২০/২২ ধাপ এগিয়ে থাকলেও তাদের মাঠে জিতেছি। এটা ইতিবাচক বার্তা ছিল। ওই সময় আমাদের দেশও খুশির জোয়ারে ভাসছিল, যেহেতু ওই সময় আমাদের মেয়েরা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জিতে ফিরেছে। এরপরই নেপালে গিয়ে ৩-১ গোলে হার; আমাদের জন্য খুবই আশাহত করার মতো বিষয় ছিল।’এছাড়া উক্ত সভায় আগামী বছরের ফিফা উইন্ডো, ২০২৩ সালের অ-২৩ এশিয়ান কাপ বাছাইপর্ব, ২০২৬ সালের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব এবং ২০২৭ সালে এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাইপর্ব নিয়ে আলোচনা করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here