২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠত হলেও ১৬ বছর পর বাংলাদেশ ফুটবলের সর্বোচ্চ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে উত্তীর্ণ হয়েছে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ। ২০১৯-২০ মৌসুমে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়ে সকল শর্তপূরণ করে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে খেলার সুযোগ পায় ক্লাবটি। তাই দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের প্রথম আগমনকে স্মরণীয় করে রাখতে চায় স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ।

ইতোমধ্যে নতুন মৌসুমের জন্য নিজেদের ৪ বিদেশি ফুটবলারের সাথে চুক্তি সম্পন্ন করেছে ক্লাবটি। বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার ফরোয়ার্ড নেডো তারকোভিচ, পোল্যান্ডের উইঙ্গার রাফাল জাবোরস্কি, ইরানের সিয়ামাক কৌরশি এবং উজবেকিস্তানের নদির মাভলোনব আসন্ন মৌসুমে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘের জার্সিতে মাঠ মাতাবেন।

স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘে যোগ দেওয়া বসনিয়ান ফরোয়ার্ড নেডো তারকোভিচ সর্বশেষ মৌসুমে খেলেছেন ইরাকের ক্লাব আল দিওয়ানিয়াতে। এছাড়াও বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, কাজাখস্তান, সার্বিয়া, মন্টেনেগ্রো, আজারবাইজান, পোল্যান্ড এবং রোমানিয়ার ক্লাবে খেলেছেন তিনি। দক্ষিণ এশিয়াতেও খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে এই ফরোয়ার্ডের। ২০১৭ সালে ভারতের আই লিগের ক্লাব নেরোকা এফসির হয়ে ১২ টি ম্যাচ খেলেছেন তারকোভিচ। ইউরোপা লিগ কোয়ালিফায়ারে ৪ টি ম্যাচ খেলেছেন ৩২ বছর বয়সী এই বসনিয়ান ফরোয়ার্ড।

তারকোভিচের সাথে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘের আক্রমণভাগকে আরো শক্তিশালী করতে দলে যুক্ত হয়েছেন পোল্যান্ডের উইঙ্গার রাফাল জাবোরস্কি। ২৭ বছর বয়সী উইঙ্গার খেলেছিলেন পোল্যান্ডের অনূর্ধ্ব-১৮ দলে। ক্লাব ক্যারিয়ারে নিজ দেশ পোল্যান্ড ছাড়াও জাবোরস্কি খেলেছেন নরওয়ে, সার্বিয়া, গ্রিস এবং রোমানিয়ার শীর্ষ লিগের ক্লাবে। সর্বশেষ ২০২০ মৌসুমে রোমানিয়ান ক্লাব পান্ডুরিতে খেলেছিলেন এই উইঙ্গার।

এই দুই ফরোয়ার্ডকে পেছন থেকে বলের যোগান দিতে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘে যোগ দিয়েছেন উজবেক মিডফিল্ডার নদির মাভলোনভ। ২৫ বছর বয়সী সম্ভাবনাময়ী এই তরুণ মিডফিল্ডার গত মৌসুমে খেলেছিলেন উজবেকিস্তানের শীর্ষ লিগের ক্লাব এফকে আন্দিজনের হয়ে। এছাড়াও উজবেকিস্তানেরই ক্লাব বুনোয়দকর ফার্ম এবং নাভবাহরেরও প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। উজবেক প্রিমিয়ার লিগে ২ মৌসুমে মোট ২২ টি ম্যাচ খেলেছেন এই মিডফিল্ডার।

স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘের রক্ষণের দায়িত্বে থাকবেন অভিজ্ঞ ইরানিয়ান ডিফেন্ডার সিয়ামাক কৌরশি। দলে সবচেয়ে বড় নাম হয়তো তিনিই। ৩১ বছর বয়সী এই সেন্টার ব্যাক ইরান জাতীয় দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। সর্বশেষ মৌসুমে কৌরশি খেলেছিলেন ইরানিয়ান ক্লাব শাহারদারী আস্তারাতে। এছাড়াও ইরানিয়ান ক্লাব সাইপা এফসি, নাফট তেহরান, ফোলাদ, কাতারি ক্লাব মুইদার এফসি সহ আরো বেশ কিছু ক্লাবে। ইরানের শীর্ষ লিগ গালফ প্রো লিগে মোট ১৫২ টি ম্যাচ খেলার পাশাপাশি এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৮ টি ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে এই ডিফেন্ডারের।

সব মিলিয়ে নতুন মৌসুমে নিজেদের আগমনটা স্মরণীয় করে রাখার দৃঢ় চেষ্টা চালাচ্ছে নবাগত স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘ। তবে দিনশেষে মাঠের পারফরমেন্সই বলে দেবে নিজেদের আগমনটা কতটা স্মরণীয় করেছে তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here